আরও সকাল বেলায়

Image

আভা সকালের স্নান টা সকালেই সারেন। ওর মেয়ে পিয়ালি বের হয়ে যায় আরও সকাল বেলায়। আর ওর বর আবির সেন ঘুম থেকে ওঠেন আরো পরে। স্নান সেরে ওকে কলেজ এ যেতে হয়। আভা সেন একটা কলেজ এর ভাইস প্রিন্সিপাল। ভিষন ব্যস্ত সকাল এ বের হন আর ফেরেন সেই রাত ৯ টা। প্রিন্সিপাল ইদানিং অসুস্থ থাকায় কলেজ এর প্রায় সব কাজ ই তাকে করতে হচ্ছে। ওর বর এর এই বাড়ি টা বেশ বড়। আট টা ভারাটে এখানে থাকে। এই বাড়িটা দেখা শোনা করার জন্য আবির কোনো চাকরি ও করেন না। রেডি হয়ে আভা হাতের ঘড়ি টা পরতে পরতে ঘুমন্ত বর কে বল্লেন-

– এই শুনছ আমি বের হচ্ছি। নাস্তা টেবিল এ রাখা আছে খেয়ে নিও।
– ওকে ডারলিং

আভার বাড়ির ৩এ ফ্ল্যাট এ ও প্রায় এক ই রকম দৃশ্য

পিকু নাস্তা সেরে রওনা দেবে। সে ও ঘুমন্ত বউ এর পাশে বসল। বউ পিয়া বলল

– যাচ্ছ?
– হু
– দুপুরের খাবার টা নিয়েছ? টেবিল এর উপর রেখেছিলাম।
– হু

পিকু উঠে যাচ্ছিল কিন্তু পিয়া ওর হাতটা টেনে ধরল। পিকু জানে পিয়া কি চাচ্ছে। পিকু ঝুকে পিয়ার কপাল এ একটা চুমু খেলো। পিয়া অভিমানি চোখে তাকাল। পিকু একটা মুচকি হাসি দিয়ে উঠে হাটা ধরল। পিয়া আসলে এই সময় ঠোট এ একটা চুমু আশা করে কিন্তু মাত্র ঘুম থেকে অথার কারনে পিকুর ওর বাসি মুখ এ চুমু দিতে ভাল লাগেনা।

পাঠকদের জন্য এবার একটু পরিচয় পর্ব টা সেরে নেই-

আভা – কলেজ এর অধ্যাপিকা। বয়স ৪৬।
আবির – আভার স্বামী। বেকার। বয়স ৫০।
টুনটুনি – আভা ও আবির এর মেয়ে। বয়স ২৬। ইউনিভারসিটি তে পড়ে।

পিকু – আভার কলেজ এর লেকচারার। বয়স ৩৯। আভার এ বাড়িতে ভাড়া থাকে।
পিয়া – পিকুর স্ত্রী। বয়স ৩৮। হাউস ওয়াইফ।
অন্তু – পিয়া ও পিকুর ছেলে। বয়স ১২। স্কুল এ পড়ে।

বাস স্ট্যান্ড এ আভা আর পিকুর দেখা।

– গুড মর্নিং দিদি
আভা একটা মুচকি হাসি দিয়ে বলল
– গুড মর্নিং

বয়স এ অনেক ছোট হলেও আভা পিকু কে খুব পছন্দ করেন। ভারাটে বলে কখন ও মনে করেন না বরং ছোটও ভাই এর মতই দেখেন। পিকুও আভাকে দারুন স্রদ্ধা করে। দিদি দিদি বলে ডাকে। বাড়িয়ালি বলে নয়। আভা কলেজ এর কাজে ও পিকু কে অনেক হেল্প করেন। কলেজ এর বিভিন্ন কাজে পিকুর ভালোর জন্য সব সময় উপদেশ পরামর্শ দেন।

– দিদি আপনার খাতা গুলো কি দেখা হয়ে গেছে?
– না রে। আর পারলাম কই? যা ব্যস্ত। জানো কালকে রাত ১২টায় ফিরেছি।
– না না দিদি …। এ ভারি অন্যায়। আপনাকে এত কাজের লোড দিলে তো আপনি ও তো অসুস্থ হয়ে পরবেন।
– কি আর করব ভাই। দায়িত্ব বড় কঠিন জিনিস।
– কিন্তু তাই বলে একজন মহিলা মানুষ কে এভাবে খাটাবে? কলেজ এর গভর্নিং বডির কি কোন দায়িত্ব নেই ব্যাপারটা দেখার?

বাস চলে এসেছে। আভা আর পিকু বাসে উঠে বসল। আভা বলল
– যাক গে আমার কথা বাদ দাও। তোমার কথা বল। গিন্নি কেমন আছে?
– আছে দিদি ভাল আছে। আমার জামাইবাবুর খবর কি?
– ওর আর খবর। মাছি মারা জামাইবাবু।
– ওভাবে বলবেন না দিদি। উনি না থাকলে এত বড় বাড়িটা দেখাশুনা করত কে? আপনি যা ব্যাস্ত।
– তা ঠিক।

কলেজ এ নেমে যে যার ক্লাস এ চলে গেল।

বিকেল ৫ টা। পিকু বাড়ি যাবার আগে একবার আভাদির রুম এ উকি দিল।

– দিদি চল্লাম।
– এই পিকু দাড়াও। আমি ও যাব।

পিকু দাঁড়িয়ে পড়ল। আভা নিজের ভ্যনিটি ব্যাগ তা কাঁধ এ নিতে নিতে নিজের রুম থেকে বেড়িয়ে এল।

– আজকে আর কিছু করবনা। খুব ক্লান্ত লাগছে।
– সেই ভাল দিদি। প্রতিদন কি আর এক ই ধকল সহ্য হয়?

পিকু আর পিয়া রাতের খাবার তা একটু তারাতারি ই খায়। তার পর শুয়ে শুয়ে টিভি দেখে ঘন্টা খানেক। তারপর ঘুমিয়ে যায়। কোনও কোনও রাত্রে তারা মেতে ওটে শরীরী খেলায়। ইদানিং ব্যাপারটা যে তাদের কাছে খুব উপভোগ্য হয় তা নয়। কিন্তু কি আর করা। মধ্যবিত্তের বিনোদন বলতে এই একটাই। পিকু চেষটা করে নিজেদের এই যৌন জীবন টা যত টা পারা যায় বৈচিত্রময় রাখতে কিন্ত তবুও পিয়া যেন দিন দিন কেমন অসাড় হয়ে পড়ছে।

ঠিক এক ই রকম পরিবেশ তৈরী হয়েছে আভা আর আবির এর জীবনে ও। বয়স বেড়ে যাওয়ায় আর আভার ব্যাস্ততার কারনে এই দম্পতির শারিরিক মিলন প্রায় হয় না বললেই চলে। মাঝে মাঝে যদিও হয় কিন্তু দুজন ই যেন দুজন এর উপর থেকে আকর্ষণ হারিয়ে ফেলেছে। বৈচিত্রের আশায় প্রতিবার যৌন মিলনের আগে ওরা ব্লু ফিল্ম দেখে। ঘন্টা খানেক ওই ব্লু ফিল্ম দেখার পর আভা আবির কে বন্ধ করে দিতে বলেন। আবির ও বুঝে যায় যে ব্যাটারি চার্জড আপ।

– এতে হবে? আর দেখবেনা?
– না আর লাগবেনা

আবির আভার শাড়ীর ভেতর হাত দিয়ে কয়েক সেকেন্ড পর তা বের করে আনেন। অন্ধকার ঘরে টিভির স্ক্রীন এর আবছা আলোয় আবির নিজের হাতের আঙ্গুল গুল দেখেন। হ্যা চক চক করছে।

আবির টিভি তা অফ করে আভার পাশে এসে শোয়। শাড়ি কুঁচি তে হাত দেন খোলার জন্য। আভা খুব বিরক্ত হয়ে আবিরের হাত টা ঝারা মেরে সরিয়ে দেন। তার পর নিজে উঠে বসেন। মাথার চুল টা খোপা করেন। তারপর দুই হাত দিয়ে শাড়িটা কোমর পর্যন্ত উঠিয়ে হামাগুরি দিয়ে বসেন। আবির নিজের ট্রাউজার তা খুলে ফেলেছে অনেক আগেই। দাঁড়িয়ে থাকা পুরুষাঙ্গটা স্ত্রীর যোনীতে ঢোকানোর আগে তাতে একটু জিভ এর স্পর্শ লাগান। ২/১ মিনিট পর আবির এর সেই জিভ আভার পায়ু পথ কে ও ভিজিয়ে দেয়। আভা এবার চরম বিরক্তিতে হুমড়ি খেয়ে ঘুরে বসেন। চিবিয়ে চিবিয়ে ফিস ফিস করে বলেন।

– দুদিন পর মেয়ের বিয়ে দেবে। নোংরামি স্বভাব গুলো এবার একটু বদলাও।
আবির একটু হেসে পুরুষাঙ্গ টা আভার দিকে তাক করে বলেন

– সরি।

আভা আবার হামা দিয়ে বসেন। আবির স্ত্রীর বিশালাকার উলঙ্গ নিতম্বে হাত বোলাতে বোলাতে কোমর আগ-পিছু করতে থাকেন। নিঃশব্দে চলতে থাকে মৈথুন। ৩/৪ মিনিট পর আভা ঘার ঘুরিয়ে আবিরের দিকে তাকিয়ে বলেন।
– আমার হয়ে গেছে।

আবির আর দেরি করেন না আভার যোনীতে নিজের যৌনাঙ্গ ঢোকানো অবস্থায় আভার পা দুটো সোজা করে আভাকে উপুর করে শুইয়ে দেন। তারপর স্ত্রীর পিঠের উপর চড়ে শ – শব্দে ৮/১০ তা ধাক্কা দিয়ে চোখ বন্ধ করে বীর্যপাত করেন।

সকাল ৮.৩০ মিনিট। বাস এ আভা এবং পিকু পাশাপাশি বসে আছে। খুব ই স্বাভাবিক একটি দৃশ্য। এভাবে বাসে করে তারা প্রায় দিন এ কলেজ এ যায়। কিন্তু আজকের দিনটি অনেক টা অন্য রকম। দুজন দুজন এর সাথে কোনও কথা বলছেনা। সাধারনত কলেজ এ যেত যেতে তারা অনেক কথা বলে। হাসি ঠাট্টা করে। কিন্তু আজকে দুজন ই দারুন মন মরা। আশ্চর্যের বিষয় যে ৪০ মিনিট এর রাস্তায় দুজন দুজন এর সাথে একটি কথা ও বলল না।

এবার চলুন এদের দুজনের ই এই আকস্মিক মৌনতার কারন তা জনা যাক।

প্রতিদিন এর মত গতকাল ও তারা রাতের খাবার শেষ করেছে। পিকু ঘরে টিভি দেখছে। পিয়া রান্না ঘরে রাতের খাবার বাসন পত্র ধুচ্ছে। এমন সময় ঘরে কলিং বেল টা বেজে উঠল। পিকু ঘড়ি দেখল ১০ টা বাজে।

দরজা খুলে দেখল আভাদি আর আবিরদা দাঁড়িয়ে। আভাদি হরবর করে বলে উঠল
– পিকু আমার সাথে এক্তু কলেজ এ চলতো
– ও মা এখন? কেন?
– হ্যা এখন। নিমাই ফোন করেছিল। কি নাকি একটা সমস্যা হয়েছে।এখুনি যেতে হবে। আমি একা মেয়ে মানুষ একা যেতে ভয় লাগছে তুমি একটু চল আমার সাথে।

পিকু দ্রুত জামা কাপর পড়ে আভাদির সাথে বের হল।

রাত বাজে প্রায় ১ টা। নিঝুম অন্ধকার রাস্তায় পিকু আর আভাদি একটা রিকশায় করে ফিরছে। দারুন একটা এম্বারাসিং ব্যাপার ঘটেছে কলেজ এ। সেকেন্ড ইয়ারের একটা ছেলে আর একটা মেয়ে কে কলেজ এর বি৯ ক্লাস রুম এ আপত্তিকর অবস্থায় পাওয়া গেছে। কলেজ এর দারোয়ান নিমাই এ ব্যপারটা ধরেছে। পিকু আর আভা সেই ক্লাস রুম এ ঢুকে ত তাজ্জব। নিমাই ওদের অপকর্ম সঠিক ভাবে প্রমান করার জন্য ওদের জামা কাপর গুলো পর্যন্ত ফেরত দেয়নি। সম্পূর্ণ উলঙ্গ অবস্থায় মাথা নিচু করে দুজন দাড়িয়ে আছে।
বুঝতেই পারছেন পিকু আর আভার জন্য কি পরিমান অস্বস্তিকর ব্যাপার। পিকু নিমাইকে কড়া করে একটা ধমক দিল ওদের কাপড় গুলো ফেরত দেবার জন্য।

এত রাত হল কারন ছেলে মেয়ে দুজন এর বাবাদের ডাকা হল। তাদের হাতে দুজন কে তুলে দেয়া হল। এবং সব শেষ এ দুজন কেই রেস্টিকেট করে দেওয়া হল।

ঘরে ফিরে পিকু পিয়া কে ঘরে না পেয়ে আভাদির ঘরে গেল। দেখল পিয়া দিব্বি আবিরদার সাথে গল্প করছে। পিকু কে দেখে হেসে বলল

– একা ঘরে ভয় লাগছিল তাই আবিরদার সাথে গল্প করছিলাম।

পিকু নিশ্চিন্ত হল। আবিরদা ঠাট্টা করে বললেন

– পিকু তোমার বউ তো খুব দারুন প্রেম করতে পারে। এতক্ষন ত আমরা দুজন ছুটিয়ে প্রেম করলাম। হাহাহাহাহা…।
পিয়া লজ্জায় মুখে আঁচল চাপা দিল। তারপর উঠে পিকুর পিছন পিছন নিজের ঘরের দিকে রওনা দিল।

ঘরে ফিরে পিকু পিয়া কে পুর ঘটনাটা বলল। পিয়া ঘুমানোর ব্যাবস্থা করছিল। পিকু পিয়া কে বলল

– এই চলনা আজকে একটু করি।
– কি বাবুর বুঝি আজ খুব গরম লেগে গেছে ছাত্র ছাত্রির ন্যাংটো শরীর দেখে?
– আর বল কেন? জান ছাত্রিটার যেমন বুক ঠিক তেমনি পাছা।

পিয়া হাসতে হাসতে বলল

– সে আমি তোমাকে ঢোকার সময় দেখেই বুঝেছি। তোমার সাথে তো আর কম দিন থাকলাম না। তোমার চোখ দেখলেই বুঝি।

আভার মুখে কলেজ এর ঘটনা শুনে আবির ভীষণ উত্তেজিত হয়ে পড়ল। আভাকে অনুরোধ করল দৈহিক মিলন এর জন্য। আভা কপট রাগ দেখিয়ে বলল

– এই জন্য তোমাকে বলতে চইছিলাম না। এই ঘটনা শুনলে তুমি যে আজকে রাতে আমাকে ছাড়বেনা তা আমার আগেই জানা ছিল। তোমাকে তো আমি চিনি?
– তাই তো তুমি আমার লক্ষ্মী বউ।

আবির আভার ঠোঁট এ ঠোঁট রাখল। আভা কামতপ্ত স্বামী কে আর আটকালেন না। নিজের মুখের জিভ সমেত ঠোঁট দুটকে সঁপে দিলেন। একটা গন্ধ। ঠিক কিসের গন্ধ তা ধরতে পারছেনা আভা। গন্ধটা আসছে আবির এর মুখ থেকে। আবির এর নাকের নিচ, ঠোটের চারপাশ জুরে গন্ধটা। কিসের গন্ধ? কিসের? কিসের? কিসের? খুব চেনা চেনা এক টা গন্ধ। মুহুরতের ভিতর আভার মাথাটা ঝিম ঝিম করে উঠল। সে চলে যাচ্ছে ২৫ বছর আগে তার কলেজ জীবনে।

কলেজ এ সে হোস্টেল এ থেকে পড়াশোনা করত। তার রুম মেট ছিল ২ জন। রিমি আর জুলেখা। এর মধ্যে জুলেখা ছিল খুব ধার্মিক মুসলমান মেয়ে। আর রিমি ছিল ঠিক তার উলটো। সব সময় হৈ চৈ আর ফুর্তি। আভাকে ও প্রেমিকা বলে ডাকতো বলত আভা আমি যদি ছেলে হতাম তাহলে তর সাথে প্রেম করতাম আর চুটিয়ে সেক্স করতাম। আভা ওর এরকম অসভ্যতায় মজা এ পেত কিন্তু কখনও প্রশ্রয় দিত না। ও প্রায় ই আভার বুক কচলে দিত। ঘরে কেউ না থাকলে ঠোঁট এ চুমু খেত। কিন্তু এর বেশি আভা ওকে কিছু করতে দিত না। কিন্তু একবার জুলেখার ভীষণ জ্বর হল তাই ও দিন দশেক এর জন্য বাড়ি গেল। রুম ওই ১০দিনের জন্য শুধু ওদের দুজনের। এই ১০ দিন ই ওরা মেতে উঠেছিল এক নিষিদ্ধ খেলায়। প্রতি রাতে দুজন দুজন এর যৌনাঙ্গ লেহন করত। রিমি প্রথম এ আভার যোনী লেহন করত এরপর আভাকে বলত ওর যোনী লেহন করে দিতে। প্রথম দিকে ঘেন্না করলে ও নব্য কামের নেশায় একসময় আভার কাছে দারুন উপভোগ্য হয়ে উঠল রিমির যোনী লেহন করা। আর সেখানেই আভা জানতে পেরেছিল যে মেয়েদের যোনীতে এক ধরনের গন্ধ হয়। একটা মেয়ে যতই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন হোক না কেন তার যোনীর ওই গন্ধ সে কিছুতেই ঢাকতে পারেনা। আপাত দৃষ্টিতে তা একটু কটু দুর্গন্ধ মনে হলে ও বিশেষ সময় এ তা পুরুষদের কাছে খুব এ আকর্ষণীও।

এ মুহূর্তে আবির আভার ঠোঁট আর জিভ টা কে পাগলের মত চুষে চলেছে। আর আভা আবিরের নাকের নিচ থেকে আসা গন্ধ টাকে যোনীর গন্ধ হিসেবে চিনতে পেরে কিংকর্তব্যবিমুঢ় হয়ে আকাশ-পাতাল ভাবছে। কোত্থেকে এল এই গন্ধটা আবিরের মুখে? তবে কি আবির পিয়ার সাথে?…

বারান্দায় বসে একটা সিগারেট ধরাল পিকু। মন টা সন্দেহে ভরে আছে। পিকু আগে ও বহুবার পিয়ার যোনী লেহন করেছে। কিন্তু আজকের মত এরকম ঘটনা আগে কখনো ঘটেনি। আজকে পিয়ার যোনী লেহন আর চোষণ করার সময় পিয়ার যোনীর কাম রসের সাথে পিকু টাটকা বীর্যের আলামত পেয়েছে। পিকু ভাবতে ও পারছেনা যে যে পিয়াকে সে এত ভালবাসে সেই পিয়া কি করে আবিরদার সাথে এসব করতে পারল। ছি ছি ছি…।

প্রিয় পাঠক, এই হচ্ছে আভা আর পিকুর হঠাত গাম্ভীর্যের কারন।

দুপুরে পিকু আর আভা একসাথে লাঞ্চ করেন। আজকে ও করছে কিন্তু কারও মুখে কোনও কথা নেই। আভা ই প্রথম নিরবতা ভাঙল।

– কি পিকু আজকে এরকম চুপচাপ কেন?
– সেই এক ই প্রশ্ন ত আমিও আপনাকে করতে পারি।
– তা পার কিন্তু এর কারন তা জানতে পারনা।
– আপনি ও পারেন না

এবার আভা হেসে উঠল। বলল

– আমি যদি আমারটা বলি তাহলে তুমি তোমার টা বলবে?
– বলব।

– ঠিক আছে। এখন ত লাঞ্চ টাইম শেষ। তুমি কলেজ ছুটির পর আমাকে নিয়ে যেও। আমরা নদীর ধারে বসব। অখানেই আমাদের কথা শেয়ার করব কেমন?

– ওকে দিদি।
নদীর ধারে বসে আছে পিকু আর আভা। সব চুপচাপ। এবারও আভা প্রথমে মুখ খুলল

– বল পিকু। তোমার টা আগে শুনি। তারপর আমারটা বলব
– দিদি এই মুহূর্তে আমার আর আপনার যে কথা হবে তা কিন্তু খুব সরাসরি হবে
– এর জন্যই ত এখানে বসা
– কোনও সঙ্কোচ করা চলবেনা।
– অবশ্যই না
– কোনও কিছু গোপন ও করা যাবেনা
– নিশ্চয় না।
– আমার ক্ষেত্রে এতা জীবনের প্রশ্ন
– আমার ক্ষেত্রে ও

আবার সব চুপচাপ। টেনশন চাপতে না পেরে পিকু একটা সিগারেট ধরাল। আর পরক্ষনেই টের পেল ও তো দিদির সামনে সিগারেট খায়না।

– সরি দিদি
– না ঠিক আছে খাও

প্রায় ২ মিনিট আবার কোনও কথা নেই। এবার পিকু বলল

– আচ্ছা দিদি আপনার কি মনে হয় পিয়ার সাথে আবিরদার কোনও রিলেশন আছে?
– তুমি কি সেরকম কোনও প্রমান পেয়েছ?
– হ্যা পেয়েছি।

আবার সব চুপ। আবির অধৈর্য হয়ে বলে উঠল

– দিদি আমার প্রশ্নের উত্তর দিন
– গত রাতের আগে হলে বলতাম না
– কেন? গত রাতে কি হয়েছে?
– কি হয়েছে তা জানিনা। তবে কিছু একটা যে হয়েছে তা নিশ্চিত।
– আপনার কাছে প্রমান আছে?
– হ্যা আছে।
– কি প্রমান?

আভা এক্তা দীর্ঘ নিশ্বাস ছেড়ে বলল

– তোমার টা বল আগে। তোমার টা শুনি।
– কালকে আমি …। কালকে আমি…।
– কালকে কি?
– কালকে আমি…।
– পিকু তুমি ই কিন্তু বলেছিলে সংকোচ না করতে এখন তুমি ই করছ।
– ওকে…। কালকে রাতে আমি পিয়ার ভ্যাজাইনা সাক করার সময় স্পারম পেয়েছি। এবং আমি নিশ্চিত যে সেই স্পারম আবিরদার।

প্রায় ৫ মিনিট কেউ কোনও কথা বলল না। তারপর আবির বলল
– এবার আপনার প্রমান টা বলুন
– ওয়েল… আমি আবিরের মুখে একটা গন্ধ পেয়েছি
– কিসের গন্ধ?
– ভ্যাজাইনাল স্মেল। আমি নিশ্চিত আবির কাল ওরাল সেক্স ও করেছে পিয়ার সাথে।
– কি করা যায় বলুন ত দিদি
আভা একটা দীর্ঘ শ্বাস ছেড়ে বলল

– জানিনা
– আমার মাথায় রক্ত উঠে গেছে দিদি। ইচ্ছে করছে ২ জন কেই খুন করে ফেলি।
– হাহাহাহা…।
– দিদি আপনি হাসছেন?
– কি করব? তোমার পাগলামো কথা শুনে হাসি ছাড়া আর উপায় কি?
– তারমানে আপনি ওদের দুজনের এই সম্পর্ক মেনে নিচ্ছেন?
– না নিচ্ছি না।
– তাহলে কি করবেন?
– দেখি কি করা যায়। এখন ওঠো।
দুজন সেই এক ই রকম নিস্তব্ধটা নিয়ে ঘরে ফিরল।
পিকুকে চা দিতে দিতে পিয়া বলল
– জানো আজ আবিরদা এসেছিল
– হুম।
– অনেক গল্প করেছি উনার সাথে। উনি অনেক জোকস জানে। বাবা কি নোংরা নোংরা জোকস। ছোট ছোট কিন্তু খুব হাসির। শুনবে?

পিকু চুপ করে চা এর কাপে চুমুক দিচ্ছে। রাগে ওর সারা শরীর জ্বলছে।

– বলল বলত পিয়া জন্ম নিয়ন্ত্রনের সবচে সহজ পদ্ধতি কোন টি। আমি বললাম জানিনা। উনি বললেন -বউ এর পাছা মারা-। হিহিহিহিহি…।হাহাহাহা…।।

পিকুর অসহ্য লাগছে। ও চাএর কাপ টা শেষ করে বারান্দায় এসে একটা সিগারেট ধরাল। ঘর থেকে পিয়ার গানের সুর শুনতে পেল… এসো এসো আমার ঘরে এসো আমার ঘরে…।

আভা কলেজ থেকে ফিরে সেই যে শুয়েছে আর ওঠার নামটি নেই। রাত্রে কিছু খাবে না বলে দিয়েছে। আবির অনেক ডাকাডাকি করেও কোনও লাভ হয়নি। ওর নাকি মাথা ধরেছে। আবির আবার ওর কাছে এসে বলল।

– মাথা ধরলে এক কাপ চা খাও ভাল লাগবে। আমি করে এনে দেব?
– না লাগবেনা।
– এক কাজ করি। পিয়া কে ডাকি ও চা করে দিক। যা দারুন চা বানায় না খেলে মুহুরতের ভিতর তোমার মাথা ব্যাথা ভানিশ।
– পিয়া ভাল চা করতে পারে তুমি জানলে কিভাবে?
– আজকে গিয়েছিলাম ওর ঘরে। চা করে খাওয়াল। অসাধারন চা বানায়।
– প্রায় ই যাও নাকি ওর ঘরে?
– মাঝে মাঝে যাই।
– শুধু চা ই খাও নাকি আর কিছু খাও?
– আর কি খাব?

আভা ঘুরে শুল। আবির মেয়েকে ডেকে রাতের খাবার খেয়ে নিল।

এভাবে চলল কিছুদিন। এর মধ্যে আভা আর পিকুর এ ব্যাপারে কোনও কথা হয়নি।কিন্তু হঠাত একদিন আভা ওর রুম এ কাজ করছিল। পিকু সেদিন কলেজ এ আসেনি। এমন সময় আভার মোবাইল এ পিকুর ফোন এল।

– হ্যালো পিকু
– দিদি আপনি কি কিছু চিন্তা করেছেন?
– কি চিন্তা?
– পিয়া আর আবিরদার ব্যাপারে?
– না।
– শুনুন দিদি আজকে সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি পিয়া নেই। ছেলে কে জিজ্ঞেস করতে বলল বাজারে গেছে। ও কখনো একা একা বাজারে যায়না। কিছুক্ষন পর দেখি রিকশায় করে দুজন ফিরছে। আবিরদা সাথে।
– হুম।
– বুঝেছি আপনি কিছু করবেন না। যা করার আমাকেই করতে হবে।

এই বলে পিকু ফোন কেতে দিল। আভা ঠিক কি করবে বুঝতে পারছেনা। অরা ত দেখি খুব বেপরোয়া হয়ে উঠছে। কি করা যায়? এমন সময় আবার পিকুর ফোন –

– শুনুন দিদি। আমি যা করব তা ঠিক করে ফেলেছি
– কি করবে?
– আমি আত্মহত্যা করব
– পিকু !!! কি বলছ তুমি
– হ্যাঁ। আমার প্ল্যান রেডি। আমি এখন যাচ্ছি। আপনি ভাল থাকবেন। টা টা।
– পিকু শোন …পিকু…পিকু

ও পাশ থেকে লাইন কেটে দিয়েছে। ধুরমুর করে আভা উঠে দাঁড়াল। কিছু একটা করতেই হবে। আজ ই…এক্ষুনি। পিকুকে বাঁচাতে হবে। আভা পিকুর ফোন এ ফোন করল কিন্ত ও ধরছেনা। আভা এবার সত্যি ভয় পেয়ে গেল। আবার পিকুকে ফোন করল। নাহ ধরছেনা।
আভা এবার খুব তাড়াতাড়ি এক্তা এসএমএস করল পিকুর ফোন এ।

।। লক্ষ্মী ভাই আমার। পাগলামি করনা। তুমি আত্মহত্যা করলে ওদের কোনও কিছুই হবেনা। অরা ওদের ফুর্তি চালিয়ে ই যাবে। মধ্যে দিয়ে তুমি ই তোমার মূল্য বান জীবন টা হারাবে। শোন, আমি একটা উপায় বের করেছি। তোমার খুব পছন্দ হবে। তুমি এখন ই নদির ধার চলে এস। ওখানেই বলছি। দেরি করনা কেমন? ।।

এসএমএস তা সেন্ড করে কাজ দিল। মিনিট খানেক এর ভিতর পিকু ফোন করল।

– দিদি … আপনি যা করতে চাচ্ছেন তা যদি আমার পছন্দ না হয় তাহলে কিন্তু… আই উইল কিল মাইসেলফ। কথাটা মনে থাকে যেন। আমি ১০ মিনিট এর ভিতর নদির ধারে আসছি। বাই।

আভা মহা মুশকিলে পড়ে গেল। তাড়াহুড়ো করে পিকুর আত্মহত্যা টা তো সামলানো গেল। কিন্তু এখন ওকে কি বলবে? ওর মনপুত না হলে দেখা যাবে নদির ধারে নদিতেই ঝাঁপ দেবে।

রিকসা চলছে নদির ধারের দিকে। আভা মন শক্ত করে রিকশায় বসে আছে। হ্যা সিদ্ধান্ত ও এক টা নিয়েছে। আর সেই সিদ্ধান্ত এই সমাজ এর কেউ মেনে নেবেনা। কিন্তু আভা নিরুপায়। পিকু কে বাঁচানোর এই একটি মাত্র রাস্তা খোলা আছে আভার কাছে। আভার মনে শুধু এটুকুই সান্তনা যে নিজেদের ফুর্তির জন্য যদি আবির আর পিয়া এরকম একটা জঘন্ন কাজ করতে পারে তাহলে আভা কেন একটা ছেলের জীবন বাঁচানোর জন্য করতে পারবেনা।

দূর থেকে পিকুকে দেখে অবাক হয়ে গেল আভা। দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সিগারেট ফুকছে। এ কি চেহারা হয়েছে পিকুর? ও মানসিক অশান্তিতে আছে তা ঠিক কিন্তু তাই বলে…

ঘাট থেকে কিছু দূরে একটা নিরিবিলি বেঞ্চিতে দুজন বসল। বসতে বসতে আভা বলল
– তোমাকে আমি বুদ্ধিমান ছেলে ভাবতাম। কিন্তু এখন দেখছি তুমি খুব বোকা।
– কেন?
– আরে পাগল। তুমি আত্মহত্যা করলে কার কি হবে? তোমার বউ কদিন খুব লোক দেখান কান্না করবে। তারপর? তারপর তোমার সম্পত্তি গুলো হাতিয়ে বাইরে দুখী বিধবা সেজে থাকবে আর প্রতিদিন দুপুর বেলায় আমার অবর্তমানে আমার বরের সাথে শোবে। কেউ জানবেনা। ওদের বরং সুবিধা ই হবে।
– আপনার প্ল্যান তা বলুন।
– শোন, আমাদের এমন কিছু করতে হবে যাতে ওদের ওপর পপ্রতিশোধ নেওয়া যায়।
– কিভাবে নেবেন ওদের ওপর প্রতিশোধ?
– ওরা যা করছে আমরাও তাই করব।
– মানে?
– তুমি একজন ম্যাচিওরড পারসন। তুমি খুব ভাল করেই বুঝতে পারছ আমি কি বলতে চাইছি। ওরা যেভাবে আমাদের ঠকিয়েছে। আমরা ও ঠিক এক ই ভাবে ওদেরকে ঠকাব।
– তি বলছেন দিদি? আর ইউ শিওর?
– হ্যাঁ । ওদের মতো আমরাও শারিরিক ভাবে মিলিত হব।

বিস্ফোরিত চোখে পিকু আভার দিকে চেয়ে আছে। ওর মুখের কথা যেন হারিয়ে গেছে। এটাকি সেই আভাদি? যাকি এতদিন পিকু বড় বনের মর্যাদা দিয়ে শ্রদ্ধা করে এসেছে? আভা বলে যাচ্ছে
– শোন, তুমি এখন তোমার বাড়ি যাবে। বউ কে বলবে ব্যাগ গুছিয়ে দিতে। আজকে রাতে তুমি আমার সাথে কলেজ এর কাজে শহরের বাইরে যাবে। ফিরবে ৩/৪ দিন পর। আমিও বাড়িতে তাই বলব।

পিকু মাথা নীচু করে দাঁড়িয়ে আছে। আভা আবার বলল।

– কি রাজী? অবশ্য তুমি যদি আমার শরীর টা পছন্দ না কর তাহলে তা আমাকে সরাসরি বলতে পার।
– কখন কোথায় থাকতে হবে?

আভা এবার পিকুর গা ঘেঁষে দাঁড়াল
– আগে তুমি ডিসিশন নাও।
– আমি রাজী দিদি
– পিকু আমার বয়স কিন্তু ৫০ ছুঁই ছুঁই।
– জানি
– আমার শরীর টা কিন্তু বেঢপ।
– আপত্তি নেই।
– আমার সাথে সঙ্গমে তুমি আনন্দ নাও পেতে পার।
– সেটা আমি বুঝব।
– আমাকে একবার নগ্ন দেখলে তোমার মোহ ভঙ্গ হতে পারে।
– ধুর বাল। আপনি থামবেন?

দূরে নদীর দিকে তাকিয়ে আভা বলল
– ঠিক সন্ধ্যা ৭ টায়। ট্রেন স্টেশন এ থাকবে। ৭.৩০ এ গাড়ী। বেশিদুর যাবনা। দুটো স্টেশন পরেই কথাও নেমে পরব। কাছাকাছি কোনও একটা হোটেল এ উঠব। ফিরব ৩ দিন পর। বাই।

আভা গোছগাছ করে নিল। ৩ দিন এর মতো কাপড় চোপড় আর সাথে আবির এর ল্যাপটপ টা ও নিয়ে নিল। আবির ই নিতে বলল ল্যাপটপ টা। আভা ও দেখল প্রায় ই মেইল চেক করতে হয় তাই সাথে ল্যাপটপ তা থাকলে ভালই।

পিকু রিকশায় করে স্টেশন এর দিকে যাচ্ছে। তার একটা অদ্ভুত আনন্দ হচ্ছে। কেন তার এ আনন্দ হচ্ছে তা সে জানে। বার বার তার চোখের সামনে আভাদির নাদুস নুদুস শরীর টা ভেসে উঠছে। কি ভাবে ও খেলবে সেই বড় সড় শরীর টা নিয়ে? আভাদির বুক আর পাছা টা অনেক বড়।আভাদিকে সে সব সময় বড় বোনের মর্যাদা দিয়ে এসেছে। আজকে সে সেই আভাদির ন্যাংটো শরীরটা নিয়ে খেলবে সেই উত্তেজনায় বার বার তার পুরুষাঙ্গ শক্ত হয়ে উঠছে। আচ্ছা, আভাদির ঠোঁট এ চুমু দিতে তার কেমন লাগবে? কেমন লাগবে তার মুখের লালার স্বাদ? আভাদির কি বগল এ চুল আছে? আভাদির শরীর এর গন্ধটা কেমন? আভাদির যৌনকেশ গুলো কি বড় বড়? ছোট করে ছাঁটা? নাকি কামানো?

– পিকু, এই যে এদিকে…।

পিকু দেখল আভাদি হাত নাড়িয়ে তাকে ডাকছে। পিকু রিক্সার ভাড়া মিটিয়ে দিয়ে আভাদির দিকে এগিয়ে গেল।

ঠিক দুটো স্টেশন পার হয়ে ওরা নেমে পড়ল। আভাদি পিকুকে নিয়ে সোজা স্টেশন মাস্টারের রুমের দিকে গেল। স্টেশন মাস্টার কে তার কলেজ এর পরিচয় দিতেই দারুন খাতির করলেন স্টেশন মাস্টারের।

– দিদি। আমার মেয়ের কাছে আপনার অনেক নাম শুনেছি। আমার বড় মেয়ে আপনার কলেজ থেকে গত বছর গ্রাজুয়েশন করেছে। তা এখানে কি কাজে দিদি?
– এই আপনাদের এলাকার মল্লিক নগর কলেজ এ আমার এক্সটারনাল ডিউটি আছে কালকে। এটা আমার ছোট ভাই পিকু।
– বেশ বেশ
– আচ্ছা, আপনাদের এখানে ভাল হোটেল কোনটা? ২ রাত থাকতে হবেতো।
– দিদি কি যে বলেন…। আমার এলাকায় এসেছেন আর আপনি হোটেল এ থাকবেন? আমার বাড়ি চলুন। আমার মেয়ে আপনাকে দেখলে খুব খুশী হবে।
– না…না… এবার না। আগামীবার এলে নিশ্চয় ই আপনার বাড়িতে উঠবো।
– ঠিক আছে। কথা দিলেন কিন্তু দিদি…। এই মন্টু…।।।।মন্টু… যা তো এই দিদিমণিদের একটু ডায়মন্ড হোটেল এ নিয়ে যা। বলবি আমার খাস মেহমান। কোনও রকম অযত্ন যেন না হয়।

হোটেল টা দারুন নিরিবিলি। রুম গুলো ও চমৎকার। রুমে ঢুকে পিকু ধপ করে খাতের উপর শুয়ে পড়ল আর আভা নিজের ব্যাগ খুলে এক্তা তোয়ালে নিয়ে বাথরুম এ ঢুকল। আভা রুম থেকে বের হলে দুজন নীচের ডাইনিং এ গেল। রাতের খাবার খেল। খাবার খেয়ে ঘরে ফিরে দুজন টিভি দেখছে। দুজন এ এর মাঝে নিজেদের স্বাভাবিক কথা বার্তা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু যত সময় ঘনাচ্ছে দুইজনের নার্ভাসনেস টা তত প্রকট হয়ে ধরা পড়ছে। এক সময় দুজন এ চুপ হয়ে গেল। পিকু আর থাকতে না পেরে বলল
– দিদি ঘুমবেন না?
– হ্যাঁ ঘুমাব। মিরাক্কেল টা দেখেনেই তারপর ই শুয়ে পড়ব।
– দিদি আমাদের বোধহয় কিছু করার ছিল। আপনি কি ভুলে গেছেন?
– আমি কিছুই ভুলিনি

পিকু ঠিক কি বলবে বুঝতে পারছে না। আসলে এভাবে কারও সাথে শরীরী মিলন করা যায়না। পিকু ঠিক করল আভাদির হাতটা এক্তু ধরবে কিন্তু আভাদির কাছে গিয়ে হাত ধরার সাহস টা আর পেল না। খুব অস্বস্তি বোধ করছে পিকু। তাহলে কি সব বিফলে যাবে?

আভা এক মনে টিভি দেখছে। আর পিকু বকার মতো আভার সামনে বসে একটার পর একটা সিগারেট খেয়ে যাচ্ছে। কোন ভাবেই কিছু করতে পারছেনা। শুধু বার বার মনে হচ্ছে এই আভাদি আমার গুরুজন কি করে তার সাথে আমি এসব করব। এক সময় সিগারেট শেষ হয়ে গেল। আভাকে রুম এ রেখে পিকু সিগারেট কিনতে গেল।

সিগারেট এর দোকান স্টেশন এর কাছেই। পিকু যখন সিগারেট কিনছিল তখন দেখল এক টা ট্ট্রেন আসছে। পিকু হঠাত ভাবল আভাদির কাছে আর ফিরে না গেলে কেমন হয়? এখন যদি ও সোজা ট্রেন এর নিচে ঝাঁপ দেয় তাহলে ক্ষতি কি? আভাদির মতো এরকম সম্ভ্রান্ত শ্রদ্ধাভাজন বড় দিদির সাথে ও কিভাবে সহজ হবে এসব করতে? এত প্রায় অসম্ভব। যদিও প্রস্তাব টা আভাদি ই তাকে দিয়েছে। পিকু ছুটে চলল এগিয়ে আসা ট্রেন এর দিকে।

আভা ভীষণ মেজাজ খারাপ করে বসে আছে। পিকু বেড়িয়ে যাবার পর আভা বিছানা থেকে উঠল। পিকুর আসতে আধ ঘন্টার মত লাগবে। এই ফাঁকে ও কিছু কাজ সেরে নেবে ঠিক করল। গত প্রায় ১ বছর আভা নিজেকে মেন্টেইন করেনি ঠিক মত। ব্যস্ততার কারনে নিজের দিকে খেয়াল করাই হয়নি। পিকুর সাথে যে ব্যাপার টা আজকে ঘটতে চলেছে তার জন্য আভা তার বয়স্ক শরীরটাকে একটু গোছাবে ভাবল। বাড়ি থেকে স্টেশন এ আসার পথেই আভা এক্তা শপিং মল থেকে কিছু প্রসাধন কিনে ছিল। বডি স্প্রে, লিপগ্লস, মাউথ স্প্রে, মাস্কারা, রেজার, বডি লোশন, এক জোড়া ৪০ ডি সাইজ এর ব্রেসিয়ার আরও কত কি। কিন্তু নিজের ব্যাগ এ হাত দিয়ে কিছুক্ষন পর ই আভা টের পেল সব কিছুই ঠিক আছে শুধু রেজার টা ফেলে এসেছে। আভার নিজের মাথার চুল ছিড়তে ইচ্ছা করছে। রেজারটা খুব ই দরকার ছিল এ মুহূর্তে।

ঝরের গতিতে ট্রেন ছুটে চলছে। পিকু পাশে দাঁড়িয়ে আছে। নাহ পারলনা পিকু। নিজেকে হত্যা করতে পারলনা। আত্মহত্যা যতটা সহজ ভেবেছিল ততটা নয়। নিঃস্ব পরাজিত সৈনিক এর মত পিকু হোটেল এর দিকে পা বাড়াল। নিজের মুখে মিজে থুথু ছিটাতে ইচ্ছে করছে ওর। ও কি কিছুই পারবেনা করতে? শেষ পর্যন্ত আত্মহত্যা টা ও করতে পারলনা। হঠাত পিকুর ভেতর কি যেন একটা হয়ে গেল। নাকের পাটা দুটো ফুলে উঠল। নাহ এভাবে সে বাঁচবে না। ওকে ও আর ইদুর এর মতো দেখতে চায় না। ও বাঁচবে সিংহের মত করে। দ্রুত পায়ে সে হোটেল এর রুমের দিকে চলল।

হোটেল এর ঘরে ঢুকে সিগারেট এর প্যাকেট টা টেবিল এর উপর রাখল। আভা জিজ্ঞেস করল

– এত দেরী হল যে?
– এই এক্তু হাটাহাটি করছিলাম।
– ও… তা এখন কি করবে? ঘুমিয়ে পড়বে?
– না
– তাহলে?
আভা বিছানার কাছে দাঁড়িয়ে আছে। পিকু সোজা আভার কাছে গিয়ে দুই হাত দিয়ে আভার মাথাটা ধরে ওর ঠোঁট জোড়া নিজের মুখের ভেতর নিয়ে নিল। এতাকে ঠিক চুমু বলা চলেনা। পিকু আভার মতা ঠোঁট দুটো চুষছে। আভা বেশ অবাক হয়ে গেল ওর আচরণ দেখে। কিন্তু ওকে কিছু বলল না। নিথর মূর্তির মতো দাঁড়িয়ে থাকল। পিকু আস্তে আস্তে ওর চোষার জোর বাড়াতে লাগল। এক সময় চোষার তানে আভার জিভটা ও ওর মুখের ভিতর চলে আসল। আভার লালাসিক্ত সেই জিভ টা পিকু চো চো করে চুষতে থাকল। আভা ধাক্কা দিয়ে পিকুকে স্রিয়ে দিল। তারপর হা করে নিশ্বাস নিতে থাকল। পিকু একটু ভয় পেয়ে গেল। দিদি কি রেগে গেলেন? আভা বলল

– ইস… এভাবে কেউ চুমু খায়? আর একটু হলেই দম বন্ধ হয়ে মরেই যেতাম।
– সরি দিদি
– ইস… ঠোঁট টা আমার ফুলিয়ে দিয়েছে।
– দিদি ন্যাংটো হন।
আভা শাড়ীর আঁচল তা গুটিয়ে হাতে নিল। তারপর নিজের কোমরের চারপাশ দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে খুলে ফেলল। দিদির ১০ টনি ট্রাকের হেডলাইট এর মতো বিশাল বুকদুটো যেন পিকুকে একটা চোখ রাঙ্গানি দিল। শাড়ি টা বিছানার এক পাশে রাখার জন্য আভা ঘুরল। পিকু দেখল সায়া দিয়ে ঢাকা বিশাল ওজনদার পাছা। আভা যখন শাড়িটা ভাঁজ করছে পিকু উঠে গিয়ে আভার ঢাউস সাইজের পাছা হাতের পাঞ্জা টা বুলাতে লাগল।

– দিদি একটা কথা বলব?
– বল
– আপনার পোঁদে তেল মালিশ করতে কমপক্ষে আধসের তেল লাগবে।

আভা হাসতে হাসতে বলল

– তুমি যে এমন খচ্চর তা আগে ঘুনাক্ষরেও টের পাইনি।কলেজ এ তো সুবোধ ছেলেটি সেজে থাকতে সবসময়।

আভার শাড়ি ভাঁজ করা শেষ হলে ব্লাউস আর ব্রেসিয়ার টা খুলে ফেলল। পিকু দেখল আভাদির বুকদুটো ঝোলা। কিন্তু স্বীকার করতেই হবে যে বেশ বড় ও বটে। বোঁটার চারপাশটা বেশ কাল আর বোঁটার সাইজটা ছোটখাট আঙ্গুরের মতো। আভা এবার থামল। পিকু তাড়াদিল।
– কি হল সায়া খুলুন।
– না
– কেন?
– আমি সব খুলে ন্যাংটো হয়ে বসে থাকি আর বাবু স্যুট টাই পরে বসে থাকবেন।
পিকু ট্রাউজার আর গেঞ্জি খুলে পুরো ন্যাংটো হয়ে গেল। পিকুর ধারনা ছিল আভাদি ওর ন্যাংটো হবার সাথে সাথে হয়তো ওর পুরুষাঙ্গটার দিতে তাকাবেন। কিন্তু আভাদি ওর পুরুষাঙ্গের দিকে ভ্রূক্ষেপ ই করলেন না। পিকু বলল
– এবার সায়াটা খুলুন দিদি
– তুমি বাতি নেভাও আগে
– আমি আপনাকে পুরো ন্যাংটো দেখতে চাই।
– সে তুমি সবসময় ই দেখতে পাবে। কিন্তু তোমার সাথে আমার প্রথম মিলনটা বাতি জ্বালানো থাকলে আমি আন ইজি ফিল করব।

পিকু হেটে সুইচ বোর্ডের দিকে গেল বাতিটা নেভানোর জন্য। বাতি নেভানোর ঠিক আগ মুহূর্তে পিকু লক্ষ্য করল আভাদি আর চোখে পিকুর দাঁড়ানো নুনুর দিকে তাকিয়ে আছে।

This entry was posted in Uncategorized and tagged . Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s