আমি ও আমার বেয়াই

Image

আমার গল্পটা নতুন মনে হতে পারে। কিন্তু তা বেশ কিছুদিন আগের। কারন গল্পের ঘটনাটা ঘটেছিল আজ থেকে ৭ ব্ছর আগে। তখন আমি ক্লাস এইটে পড়ি। মামা বাড়ীতে মামাতো বোনের বিয়েতে বেড়াতে গিয়ে পরিচয় হয় বোনের দেবর লিপনের সাথে। লিপন দাদা তখন ইন্টার মিডিয়েট পড়ে। বিয়েরদিন আগে আগেই চলে আসে মামাদের বাসায়। পরিচয়ের পর থেকেই লিপন দাদা আমার পিছু নেয়। বেয়ান সম্পর্কের কারেনে কেউ কিছু মনে করছেনা বিধায় ফাক পেলেই আমাকে কাছে টানার চেষ্টায় ব্যস্ত সারাক্ষন। লিপন দা দারুন মজার মজার গল্পো বলতে পারে। মাঝে মাঝে হালকা ইরোটিক গল্পো বলতে থাকে। তার আচার আচরন আমাকে মুগ্ধ করে। লিপনদাতো আমার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। আমার উচ্চতা দেখে সে বিমুগ্ধ। কারন ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি লম্বা মেয়েই নাকি তার চোখে পড়ে না। তার উপর আমার মুখের গড়ন, নাক, চোখ, চুল, ঠোট সবই তাকে দারুন আকর্ষন করে। আমার ঠোটের দিকে তাকালে নাকি তার শরীরের ভিতর কেমন করে। আমাকে একবার বলেই ফেলল আমার বুকের উচ্চতার দিকে চোখ পড়লেই তার মাথা ঘুরে যায়। আমার চোখের দিকে তাকালে চোখ ফেরানো যায়না, আমার লোভনীয় নাকটা তার খুব টানতে ইচ্ছে করে– এমনি পঞ্চমুখি প্রশংসায় আমি আত্মহারা হয়ে গেলাম। লিপনদার মুখে নাকের ডানদিকে … …একটা তিল। স্বাভাবিকের চেয়ে একটু বড়। দেখতে দারুন লাগে। একবার বললাম আমি একটু ছুয়ে দেখব। বলল, তা হবে না। আমি বললাম কেন? বলল তুমি ছুলে আমি পাগল হয়ে যাব। আমি দেখি কেমন পাগল হন বলেই তার মুখে হাত দিয়ে তিলটা ছুয়ে দিয়ে দৌড় দিলাম। রুমের ভিতর কেউ ছিলনা, পিছন থেকে আমার উড়না টেনে ধরতেই আমার বুক উন্মুক্ত হয়ে গেল। অমনি লিপনদা হা করে আমার বুকের দিকে তাকিয়ে দেখতে লাগলো আর আমি লজ্জায় লাল হয়ে তার হাত থেকে উড়না নেয়ার জন্য কাড়াকাড়ি শুরু করলাম। কিন্তু সে তা না দিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে মিটি মিটি হাসতে হাসতে উড়না আড়াল করতে লাগল্। আমি লজ্জায় আমার দুহাত দিয়ে বুক ঢাকতে চাইলাম। কিন্তু আমার বড় বড় দুটি বুক হাতের আড়ালে লুকাতে ব্যর্থ হলাম। সেই সুযোগে লিপন দা হা করে নতুন বিশ্ব দেখার মত অবাক চোখে দেখতে লাগল। একসময় আমার ফ্রগের নীচের দিকটা ভাজ করে উপরে তুলে বুক ঢেকে রুম থেকে বেরিয়ে গেলাম। মামাতো বোন নিতার ঘরে ঢুকে দেখি দিদি কাত হয়ে শুয়ে আছে। আমি চুপি চুপি গিয়ে আমার ব্যগ থেকে আর একটা উড়না বের করে গলায় পেচিয়ে দিদির পাশে শুয়ে পড়লাম। বিকাল গড়াতেই নানা আত্মীয় স্বজনের আগমনে বাড়ী ভরে যেতে থাকে। আমি দিদির পাশে পাশে থেকে … …তাকে নানা কাজে সাহায্য করতে থাকি। তার ছোট ছোট ফাই ফরমাশ খাটতে থাকি। যখনই দুপুর বেলার ঘটনা মনে পড়ে তখনই মনে মনে লজ্জায় লাল হয়ে যেতে যেতে দিদির নানা কাজ করে দেবার মাঝে নিজেকে লুকিয়ে রাখতে থাকি। লিপন দাদা মাঝে মাঝে এসে আমাকে ইংগিত করে ছোট ছোট হাসি তামাশা করতে থাকে। তার বৌদি তথা আমার নিতা দিদি তার কথায় হাসতে থাকে। লিপনদা ইশারায় মাঝে মাঝে আমাকে বাইরে যেতে ডাকে। কিন্তু আমি লজ্জায় মুখ ফিরিয়ে নিয়ে চুপ করে বসে থাকি। আমার বুকের মাঝে এখনো শির শির করে, যখনই দুপুরের কথা মনে পড়ে। সন্ধ্যা হতেই আমি দিদির কথামত ব্যাগ থেকে দিদির কিনে দেয়া আমার নতুন পোশাক বের করে পড়েনিলাম। লাল টকটকে স্কাটের উপরের গেঞ্জি একটু টাইট ধরনের। মাজার কাছে শেষ হয়েছে। তার পরে হাটু পর্যন্ত অন্য পার্টটা দারুন কারুকাজে ভরপুর আলোতে চক চক করছে। নীচে শুধু পেন্টির উপরে একটা হাপ প্যান্ট পড়া। হাটু থেকে আমার পা পর্যন্ত উন্মসুক্ত। আমার শরীরের রং কাচা হলুদের মত তা আগেই লিপন দাদা বলেছে। আমার দিদির পরামর্শে আমি গেঞ্জির নিচে কোন ব্রা পরলামনা। কিন্তু সমস্যা হল হাটতে গেলে আমার হাটার তালে তালে স্তনদুটিতে দোলখাচ্ছে। পোষাকটা পড়া শেষ করে কেবল দিদির দিকে ফিরে … …জিজ্ঞাসা করছি ঠিক আছে কিনা এমনি সময় লিপন দা মুড়মুড় করে কি যেন বলতে এসে ঘরে ঢুকে আমার দিকে তাকিয়ে স্তম্ভিত হয়ে দাড়িয়ে গেল। চোখ একেবারে আমার শরীরের দিকে স্থির হয়ে আছে। কথন মুখটা হা হয়ে গেছে তা ঠিক করতে পারেনি। এমনিভাবে অনেক্ষণ তাকিয়ে থাকার পর দিদি বলল, কি হল লিপন সাহেব? মুখে যে মাছি ঢুকে পড়বে। আমার বোনটি কি চিড়িয়া খানার কোন জীব হয়ে গেল নাকি? অমন করে কি দেখছেন? অমনি হকচকিয়ে উঠে বলল, আপনার বোন এত সুন্দর? দিদি বলল, না সুন্দর না, সুন্দরী। হোহো করে সবাই হেসে উঠলাম। লিপন দাদার হাসিতে ঘরটা ভরে গেল। আমি নিতা দিদির পাশে গিয়ে তার ঘারে ভর দিয়ে বসেপড়লাম। অমনি লিপন দাদা তার মোবাইল ক্যামেরাটা সেট করে বলল এমন ছবি আর তোলা হবে না। তাই এখনই সময়, বলেই ছবি তুলতে লাগলেন। অনেকগুলো ছবি তুললেন। আমাকে নানা ভাবে বসতে বলে নানা এ্যাগেলে ছবি তুলনে। আমার মনে নেই যে এখন আমার বুকে কোন উড়না নেই। আমার স্তনগুলো একেবারে খাড় হয়ে সামনের দিকে চেয়ে আছে, মনেই পড়লনা। ছবি তোলা শেষ হতেই হই চই করতে করতে দিদির সাত আটজন বান্ধবী ঘরে ঢুকেপড়ল। সবাই গিয় দিদির পাশে বসে পড়তেই আমি উঠে খাটের এক পাশে দিয়ে দাড়ালাম। লিপন দাদা আমাকে ছবি দেখাতে আমার পাশে এগিয়ে … …এলো। আমার পিঠের কাছে দেয়াল। আমার ডান পাশে দাড়িয়ে বা হাতে মোবাইল নিয়ে আমার বুকের উপর দিয়ে হাত রেখে এক একটা করে ছবি দেখাতে লাগল। ছবি দেখতে দেখতে টের পাচ্ছি লিপন দাদার বা হাতের কনুই আমার গেঞ্জির উপর দিয়ে আমার ডান স্তনের বোটা স্পর্শ করছে। আমার শরীর শির শির করে উঠছে। আমি পিছনে পিছিয়ে যেতে চাইলাম। কিন্তু পিছনে দেয়াল থাকায় সরতে পারলাম না। এক এক করে ছবি সরিয়ে সরিয়ে আমাকে ছবি দেখাচ্ছে। একবার দেখলাম শুধু আমার বুকের ছবি। আমি লজ্জায় লাল হয়ে গিয়ে বললাম এটা কেন তুলেছেন? বলল ভাল জিনিস স্মৃতিতে ধরে রাখতে হয়। যদি হারিয়ে যায়? কথা শুনতে শুনতে অনুভব করলাম লিপন দাদার কনুইয়ের চাপ আমার ডান স্তনের উপরে একটু বেড়ে গেল। আমার শরীরটা কেঁপে উঠলো। লজ্জার সাথে সাথে একটা ভাললাগা অনুভূতি টের পেলাম। অনেকক্ষণ ধরে লিপন দাদা ছবি দেখাল এবং আমার স্তনে সারাক্ষণ তার কনুইয়ের নড়াচড়ায় চাপ অনুভবের সাথে সাথে জীবনের প্রথম এক অজানা শিহরন টের পেলাম। হঠাৎ ঘরটা অন্ধকার হয়ে গেল, সংগে সংগে কড়াত কড়াত প্রচন্ড বিদ্যুৎ চমকের শব্দে ভয়ে আমি লিপনদাদাকে দুহাতে জড়িয়ে ধরলাম। বাইরে খুব জোড়ে বৃষ্টি শুরু হয়ে গেছে। বাইরের যত লোকজন সব ছুটাছুটি … …করতে লেগেগেল। যে যেখানে পারছে ঢুকে পড়ছে। দিদির ঘরটা লোকে ভরে গেল। প্রচন্ড ভিড়ে তখনো আমি লিপন দাদাকে জড়িয়ে ধরে আছি। হঠাত টের পেলাম আমার পিঠে কার হাতের স্পর্শ। সংগে সংগে খেয়াল হলে আমি লিপন দাদাকে ছেড়ে সরে যেতে চাইলাম। কিন্তু সেই সাথে সাথেই আবার প্রচন্ড শব্দে বিদূত চমকালো এবং আমি ভয়ে দাদাকে আবারো জড়িয়ে ধরলাম। একটা হাত আমার পিঠে জড়িয়ে ধরে কানের কাছে মুখ এনে বলতে লাগল, ভয় নেই। আমি আছি না? আমি অনুভব করলাম আমার স্তন জোড়া লিপন দাদার কাধের কাছে লেপ্টে আছে। মনে হলেইবা কি? আমি ইচ্ছা করলেই আর সরে যেতে পারছিনা। কারন আমার পিঠের কাছে দেয়াল, ডান পাশে, বামপাশে অনেক লোকে ঠাসাঠাসি। বাধ্য হয়ে লজ্জার মাথা খেয়ে সেভাবেই দাড়িয়ে রইলাম। একটু পরে লিপন দাদা আমার কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিস ফিস করে বলল, সামনে এসো। ভাবলাম তাহলে বেচে যাই। আমি সংগে সংগে লিপন দাদাকে পিছনে দিয়ে সামনে তার বুকের কাছে এসে দাড়ালাম। আমার চারিদিকে লোকজনে ঠাসাঠাসি। সবাই কথা বলার জন্য ঘরের মধ্যে ভিষন গন্ডগোলের মত মনে হচ্ছে। কে কার কথা শুনছে জানিনা, তবে কারো কথা বোঝা যাচ্ছে না। অনুভব করলাম লিপন দাদা তার দুহাত আমার মাজার কাছ দিয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরে তার কাছে … …টানছে। আমি সামনের লোকের চাপে এমনিতেই পিছনে সরে আসতে বাধ্য হচ্ছিলাম। লিপন দাদার আকর্ষনে আমি তার দেহের সংগে লেগে দাড়িয়ে রইলাম। লিপন দাদার হাত আস্তে আস্তে নড়াচড়া করছে আমার নাভির কাছে। শির শির করছে। তবু লজ্জায় কিছু বলছিনা । তাছাড়া বলতে গেলে পাশের লোকজন শুনতে পেলে আরো লজ্জায় পড়তে হবে। দিদি একবার ডেকে জিজ্ঞাসা করল, মনোমিতা আছিস? আমি বললাম, আছি দিদি। কোন সমস্যা নেইতো? আমি বললাম, না দিদি। লিপন দাদার হাতে চাপ ক্রমেই বাড়ছে। আমার শরীরের পিছন দিকটা তার পা থেকে গলা পর্যন্ত দেহের সংগে লেগে আছে। হঠাত লিপন দাদা আমার নাভি বরাবরে একটা আংগুল দিয়ে শুরশুরি দিল। আমি কেপে উঠে তার পিছনে হাত নিয়ে তার উরুতে চিমটি কাটলাম। ব্যথায় উ করে উঠে আমার বুক বরাবর হাতে নিয়ে চেপে ধরল। আমি তার হাত সরাবার জন্য মোড়ামুড়ি করতে লাগলে সে আরো জোড়ে জড়িয়ে ধরে আটকে রাখল। আমি বহু চেষ্টা করে তার হাত ঢিলা করতে পারলাম না। বাধ্য হয়ে তার উরুতে জোড়ে আবার চিমটি কাটতে লাগলাম। ফলে বিপদ আরো বেশী হল। লিপন দাদার দুটি হাত আমার দুটি স্তনকে দুই হাতে মধ্যে নিয়ে আরো জোড়ে চেপে ধরল। আমি এখন কি করি। চিতকার দিতে পারছিনা, ছাড়াতে পারছিনা, চিতকার দিলে লোকের মধ্যে এক … …মহা কেলেংকারি হবে, অপরদিকে আমি লজ্জায় শেষ হয়ে যাচ্ছি। কি করব বুঝে উঠতে পারছিনা, মাথা ভন ভন করছে। আমি সর্ব শক্তি দিয়ে লিপন দাদার উরুতে চিমটি কাটছি। কিন্তু তাতে তার কোন প্রতিকার হচ্ছে না। বরং আমার দুস্তনের উপর তার হাতের পিড়ন বেড়ে যাচ্ছে। কি করে যে কি করি, বুঝে উঠতে পারছিনা। ডানে, বামে, সামনে, পিছনে কোনদিকে সরে যেতে পারছি না। এবার টের পাচ্ছি লিপন দাদার হাত আমার দুটি স্তনকে আস্তে আস্তে চাপ দিচ্ছে। সারা শরীরে বিদ্যুত চমকানো মত করে চমকে চমকে উঠছে। দুটি স্তন দুই হাতের তালুতে ধরে ক্রমশ চাপ বাড়িয়ে চলেছে। অন্ধকারে কেউ কিছু টের পাচ্ছে না। কে যেন বলল, একটা বাতি নিয়ে আসতে। কিন্তু কেউ নিয়ে আসছে না। মনে মনে বাতি আনার দায়িত্বে থাক লোকটার্ উপর আমার ভীষন রাগ হচ্ছে। রুমের মধ্যে হট্টগোল ক্রমাগতভাবেই চলছে। কেউ আস্তে কেউ জোড়ে। যার যেমন খুশি সে সেইভাবে কথা বলছে। কেউ রাগে ফুসছে যে বৃষ্টি নামার আর সময় পেলনা। সারা দিন রোদ্দুর আর এখন দেখ কেমন বৃষ্টি। আমার বুকে লিপন দাদার হাত এখন কোন বাধাহীন ভাবেই খেলে চলেছে। আমি নিরূপায় হয়ে হাল ছেড়ে দিয়েছি। কারণ আমার বাঁধা দেয়া তার জন্য লাভের হয়ে দাড়িয়েছে। আমি এখন আর কোন প্রকার বাঁধা দিচ্ছি না। … …বরং শরীরের মধ্যে কেমন একটা ভালোলাগা কাজ করছে। টের পাচ্ছি লিপন দাদা আমার স্তনের বোটা দুআংগুলে ধরে পাকাচ্ছে। শরীরটা দারুনভাবে মোচড় দিয়ে উঠছে। সারা শরীর এক অজানা শিহরণে কেঁপে কেঁপে শরীরকে অবশ করে তুলছে। আমার পাছাটা লিপন দাদার মাজার কাছে যেখানে লেপ্টে আছে সেখানে টের পাচ্ছি একটা শক্ত কি যেন আস্তে আস্তে নড়ে চড়ে উঠছে। আমার দুপায়ের খাজে খোঁচা মারছে। আমি সহ্য করতে পারছিনা লিপন দাদার দুহাতে আমার স্তনের বোটা পাকানো। আমি যত পালগ হয়ে যাচ্ছি তার পাকানো, স্তন ধরে মনের মত করে চাপা তত বেড়ে যাচ্ছে। আমার পা থেকে মাথা পর্যন্ত শিউরে শিউরে উঠছে। আস্তে আস্তে আমার শরীরের সমস্ত শক্তি যেন ফুরিয়ে যাচ্ছে। এক অজানা সুখের সাগরে ভেসে চলেছি। এক সময় আমার গেঞ্জিটা টের পাচ্ছি আমার মাজা থেকে উপরের দিকে উঠে যাচ্চে এবং এক সময় অনুভব করলাম লিপন দাদার ডান হাত গেঞ্জির ভিতর দিয়ে আমার স্তনে পৌছে গেল। তার হাত এবার আমার গেঞ্জির বাধা অতিক্রম করে সরাসরি আমার স্তনের চামড়ায় পড়তে আমি আর নিজেকে ধরে রাখতে পারলাম না। আমার সমস্ত শক্তি হারিয়ে লিপন দাদার গায়ে হেলান দিয়ে পড়লাম। উনি আমাকে বাম হাতে শক্ত করে ধরে ডান হাত দিয়ে আমার দুটি স্তন ক্রমাগতভাবে … …মর্দন করে করে আমাকে পাগল করে তুললো। একবার স্তনের বোট পাকায়, একবার হাতের তালুতে স্তন ধরে নানা কৌশলে চাপে, খননোবা স্তন বোটার চারিদিক দিয়ে আস্তে করে আংগুল বুলিয়ে দিয়ে আমার ভিতরের অচেনা সুখকে তাড়িয়ে তাড়িয়ে প্রকাশ ঘটাতে চাইছে। অপরদিকে তার প্যান্টের তলা থেকে এক দন্ডমত কি যেন আমার পাছায় খোচা মেরে চলেছে। আমার বোঝার কোন অনুভূমি তখন নেই, আসলে সেটি কি। কতক্ষণ এভাবে চলছিল জানিনা, হঠাত বিদ্যুত চলে আসলে লিপন দাদা আমাকে ছেড়ে দিল। আমি জ্ঞানহীন অব্থার মত হয়ে কোন রকমে দাড়িয়ে রইলাম। নিতা দিদি আমাকে ডাকলে আমি সম্মিত ফিরে পেয়ে তার কাছে চলে গিয়ে তার পিঠের কাছে বসে পড়লাম। সবাই আবার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ল। ঘর খালি হয়ে যেতে লাগল। ইতিমধ্যে বৃষ্টি থেমে গেছে। কিন্তু আমার উঠতে ইচ্চা করছিলনা। আমার কোন কাজে আর মন বসছেনা। শরীরের মধ্যে এক অজানা অচেনা অনুভূমি আমাকে তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। দিদি আমাকে বলল, কিরে তোর কি হল? আমি বললাম, দিদি আমার ভীষন ঘুম পাচ্ছে। আমি বসে থাকতে পারছি না। রাত তখন ৯টা বাজে। দিদি ঘড়ি দেখে বলল, তাইতো, তোরতো ঘুমের সময় হয়ে গেছে। কিন্তু ঘুমাবি কোথায়? আর ঘুমালেতো বিয়ে দেখতে পারবি না। আমি বললাম, একটা ঘুম দিয়ে উঠতে পারলে দেখতে … …পারতাম। দিদি বলল, কিন্তু এখানেতো ঘুমাতে পারবিনা। দাড়া তোর ব্যবস্থা করছি। দিদি সুমিত্রা মাসিতে ডেকে বললো, সুমিত্রা দি, তুমি মনোমিতাকে একটু পাশের ঘরে দোতলার কোনার ঘরে নিয়ে গিয়ে বিছানা ঠিক করে দিয়ে আসো। অনেক রাত হয়েছে। আমি সুমিত্রা দিদির পিছন পিছন পাশের বাসায় দোতলায় গিয়ে উঠে দক্ষিন দিকের একেবারে শেষ দিকের রুমে চলে এলাম। ঘরটা বন্ধ। ঘরে ঢুকে দিদি আলো জ্বেলে দিলো। ছোট ঘরের একদিকে একটা আলমারী, একদিকে আলনা, একটা টেবিল, টেবিলে কিছু বই, একটা কলম দানি, বইগুলো গুছিয়ে রাখা। আলনায় অনেকগুলো কাপড়চোপড়। একদিকে একটা জানালা। জানালাটা মাসি খুলে দিলেই দেখাগেলা দক্ষিণ দিকের ফাঁকা। একটা গাছের ডাল ঝুলে এসে পড়েছে জানালার কাছে। একটা খাটের উপর সুন্দর বিছানার চাদর বিছানো, দুটো বালিশ। একটা তোয়ালে দিয়ে বালিশ দুটো ঢাকা। হাতের কাছেই বেড সুইচ। দিতদকে বললাম, সুমিত্রা দি একটা জগে একটু জল দিয়ে যাবে? আমার আবার জল না খেলে ঘুম আসে না। সুমিত্রা দি বাইরে চলে গেল। আমি দেখলাম রুমটা বেশ নিরিবিলি। এদিকে কেউ তেমন আসে না। বিয়েবাড়ীর কাজে সবাই ব্যস্ত। সবাই বিয়েবাড়ীর উঠোনে নানা কাজ নিয়ে আছে। আমার কেমন একটু ভয় ভয় করতে লাগল। এখানে আমি একা একা ঘুমাবো কি করে? … …এলোমেলো ভাবতে ভাবতেই সুমিত্রা দি জগে করে জল নিয়ে এলো। গ্লাস রুমেই ছিল। টেবিলের উপর জগ রেখে বলল, ভয় করবেনাতো? এদিকে কিন্তু কেউ আসবে না। আমার রুম এটি। আমি একা একা নিরিবিলিতে এখানে থাকি। আমার কিন্তু ভয় করে না। আর ঘরে খিল লাগিয়ো না। কারন কখন কি দরকার ঞয় কে জানে? তোমাকে আবার ঘুম থেকে ডেকে তুলতে হবে। বলে সুমিত্রা দি চলে গেল। আমি তবু ভয়ে দরজায় খিল লাগিয়ে মশারী টাঙিয়ে সুইচ অফ করে শুয়ে পড়লাম। তখনো ভাল ঘুম আসেনি। ঘুম ঘুম ভাব। টের পেলাম কে যেন দড়জায় টোকা দিচ্ছে। বললাম, কে? কোন উত্তর এলো না। ভাবলাম কেউ হয়তো কিছু নিতে এসেছে। তারাতাড়ি উঠে খিল খুলে দিয়ে সরে দাড়াতেই কে যেন ঘরে ঢুকে খিল আটকে দিল। বললাম কে? কোন কথা না বলে আমাকে জড়িয়ে ধরে কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিস ফিস করে বলল, আমি বেয়াই। বুকটা আমার ধরাস ধরাস করে উঠলো। বললাম, আপনি কেন? বলল, কথা বলনা, কেউ শুনতে পাবে। শুনলে কেলেংকারী হয়ে যাবে। বলতে বলতে আমাকে খাটের উপর বসিয়ে দিল। আমি কিছু বলতে যাচ্ছিলাম। আমার মুখে হাত চাপা দিয়ে কানেকানে বলল, আমি বৌদিকে শুনেছিলাম তোমাকে এ ঘরে ঘুমাতে পাঠাচ্ছে। তাই চলে এলাম। বলতে বলতে আমার বাধা অতিক্রম করে আমার মাথা ধরে আমার ঠোটের উপর তার ঠোট চেপে ধরে। কিস খেল। আ: কি … …শিহরণ! আমার মাথা এক হাতে ধরে অন্য হাতে আমার পিঠ জড়িয়ে ধরে ক্রমাগত চুমু খাচ্ছে আমার ঠোটে। আমার ঠোট তার মুখের ভিতর নিয়ে চুষছে। মাঝে মাঝে তার জিহ্বা আমার মুখের ভিতর ঠেলে ঢুকিয়ে দিচ্চে। আমার মুখের লালা তার মুখে নিয়ে নিচ্ছে। ইশারায় আমার জিহ্বা তার মুখের ভিতর দিতে বলছে। আমি চেতনাহীনের মত তার ইশারায় তাই করছি। আমার চিহ্বা অনেকক্ষণ ধরে চুষে চুষে আমার মুখের সকল লালা খেয়ে ফেলছে। লিপন দাদার ডান হাত আমার পিঠ থেকে আস্তে আস্ আমার বুকের কাছে চলে এলো। আমার বা দিকের স্তনটা চেপে ধরে আদর করতে করতে চুমু দিয়ে চলেছে। জিহ্বা ছেড়ে সে আমার ঠোট চুষে চুষে খাচ্ছে, যেন লজেন্স চুষে চুষে খাচ্ছে। কতক্ষণ পরে ঠোট ছেড়ে আমার ঘাড়ে নাক ডুবিয়ে দিয়ে ঠোট দিয়ে সুড়সুড়ি দিতে দিতে চারিদিকে ঘোরাফেরা করছে। আমি শিহরিত হচ্ছি থেকে থেকে। লিপন দাদার ঠোট ধীরে ধীরে আমার গলা থেকে বা দিকের স্তনের উপর চলে আসে। ইতিপূর্বে ঘারে ঠোট ঘষার মাঝে আমার গেঞ্জি খূলে ফেলেছে। আমার বড় বড় দুটি কমলার মত মচমচে স্তন জোড়া লিপন দাদার চোখের সামনে উন্মুক্ত হয়ে লাফিয়ে উঠে। অসম্ভব এক আনন্দের আতিসয্যে লিপন দাদা ঠোট আমার বাম স্তনের উপর নিয়ে এসে স্তনের বোটা দুঠোটের ফাকে নিয়ে চোষা শুরু করে। … …অপর দিকের স্তনটা হাতের মুঠোয় নিয়ে মর্দন করেই চলেছে। আমি নিরূপায় হয়ে এখন শুধু মাঝে মধ্যে উ: আ; শব্দ করছি। তা আবার আস্তে আস্তে। কারন বিয়ে বাড়ি। কেউ যদি শুনে ফেলে। জানালা দিয়ে যে টুকু আলো আসছিল তাতে দেখতে পাচ্ছি লিপন দা পাগলের মত আচরণ করছে। আবেশে আমার চোখ বুজে আসছে। আমি ছোখ বুজে শুধু এখন লিপন দাদার হাতের খেলনা হয়ে তার ইচ্ছার কাছে নিজেকে সমর্পণ করে দিয়ে অচেনা অজানা এক গ্বর্গ সুখ অনুভব করছি। আমার শরীরের সকল অনুভূতিগুলো যেন তার এই আদর তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করছে। জীবনে এই প্রথম কোন পুরুষের হাতে আমি এভাবে মর্দিত হচ্ছি। আমি যেন আর পারছিলাম না এবং তা দাদা বুঝতে পেরে আস্তে করে আমকে বালিশে মাথা দিয়ে শুইয়ে দিল বিছানায়। জ্বরে আক্রান্ত হলে যেমন শরীরে কোন শক্তি থাকে না, আমারো যেন তেমন অবস্থা। কোন শক্তি আমার ছিলনা। আমার মাথা বালিশে রেখে আমার শরীরটাকে ধরে খাটের উপর লম্বালম্বি করে শুইয়ে দিয়ে আমার কোমর থেকে স্কার্টের নীচের পার্টটা খুলে পাশে রেখে দিল। এবার ডান হাতের মুঠোয় আমার বাম স্তনটা ধরে আদর করতে করতে করতে আমার বাম স্তনে ঠোট ছোয়ালো। স্তনের বোটায় আস্তে আস্তে দাতের আঘাত দিয়ে আমার শরীরে আগুণ জ্বালাবার দারুন এক খেলা শুরু করে লিপন … …দাদা। একবার ডান হাতে বাম স্তন আবার বাম হাতে ডান স্তন ধরে অপর স্তনে মুখ দিয়ে আমার শরীরকে দলিত মথিত করতে থাকে। আমি ক্রমান্বয়ে নিজেকে সুখের জগতে হারিয়ে ফেলতে থাকি। আমার সকল নিয়ন্ত্রন একসময় লিপন দাদার ইচ্ছার কাছে পরজিত হয়। কখন জানিনা আমার দুটি হাত লিপন দাদার পিঠে উঠে গিয়ে জড়িয়ে ধরে। লিপন দাদার মাথায় হাত দিয়ে তাকে আমার বুকের সাথে জোড়ে চেপে ধরি। আমার ডান স্তনটা প্রায় সবটুকু তার মুখের মধ্যে ঢুকে যায়। আমার কমলার সাইজের স্তনের এখনো চাকা ভাংগনি। কখনো কখেনো দাদার জোড়ে চাপের ফলে ব্যথা করছে। কিন্তু তার ভিতর থেকেই দারুন সুখ অনুভূত হচ্ছে। কিছু সময় পর দেখলাম দাদা তার মুখ স্তন থেকে নিচে নামিয়ে নাভির কাছে নিয়ে যাচ্ছে। আমার শরীর শিহরণে মোচর দিয়ে উঠছে। আমার স্তনে দাদার এক একটা চাপে মনে হচ্ছে শরীরটা এখনই ভেংগে পড়বে। এতকাল অতি যত্নে রক্ষিত আমার নারী দেহের সবচেয়ে সুন্দর আর শরীরর আকর্ষনীয় বস্তুদুটি আজ লিপন দাদার হাতের মধ্যে নিষ্পেশিত হচ্ছে। আমি বুঝতে পারিনি এত তাড়াতাড়ি আমি কোন পুরুষের হাতে এভাবে নিষ্পেশিত হব। অবশ্য এখন বুঝতে পারছি, আরো আগে হলে আরো এমনি সুখ পেতে পারতাম। লিপন দাদা আমার পেন্টিতে হাত দিতেই আমি লাফ দিয়ে বসে পড়ে … …তার হাত চেপে ধরলাম। দারন এক শংকায় কেঁপে উঠলাম। অমনি দাদা আমার দুই স্তন দুই হাতে ধরে আবার আমাকে চিত করে শুইয়ে দিল। আমি দুই হাত দিয়ে দাদার মাথ চেপে ধরে আমার মুখের কাছে টেনে এনে তার ঠোটে ঠোট ছোয়ালাম। তার নিচের ঠোট কামড়ে ধরলাম। আমার স্তনের পরে লিপন দাদার বুক চেপে ধরল। আর টের পেলাম, তার একটা হাত আমার পেন্টিটা ধরে নিচের দিকে নামিয়ে নিচ্ছে। আমি কোন বাধা দিতে পারছিনা। হঠাত উঠে বসে আমার দুপায়ের থেকে আমার পেন্টিটা বের করে নিলো। আমি বুঝতে পারলাম আমার দুপায়ের সংযোগস্থল উন্মুক্ত হয়ে আছে। লজ্জায় মরে যেতে ইচ্ছে হচ্ছিল। কিন্তু কোন উপায় নেই। আমাকে শক্ত করে ধরে রেখেছে। দুই হাতে দুটি স্তন ধরে আবার মুখটা আমার নাভিতে নামিয়ে এনে জিহ্বা দিয়ে সুরসুরি দিতে শুর করল। আমি শিহরিত হচ্ছি বারবার। এত বেশি শিহরিত হচ্ছি যে শুয়ে থাকতে পারছিনা। খাড়া হয়ে বসে পড়তে চাইছি। কিন্তু দাদার শরীরের চাপে তা পারছি না। দুহাতে আমার মচমচে স্তন দুটি সমান তালে মর্দন করেই যাচ্ছে আর জিহ্বার লেহন ধীরে ধীরে নাভি থেকে নিচের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। আমি বাধা দেয়ার সকল শক্তি হারিয়ে ফেলেছি। শুধু তার মাথাটা দুহাতে ধরে রাখছি। হঠাত টের পেলাম তার জিহ্বা আমার যোনিতে স্পর্শ করল। আমি … …বলে ফেললাম ছি:ছি;ছি। লিপন দাদা ফিস ফিস করে বলল, শব্দ করবেনা, কেউ শুনে ফেলবে। আমি চুপ করে গেলাম। কিন্তু আমার ঘৃনা করতে লাগল। উনি আমার যোনিতে জিহ্বা দিয়ে চাটতে লাগল। আমার শরীর এবার আরো বেশী শিহরিত হয়ে মুচড়িয়ে উঠলো। আমার যোনির মধ্যে ক্লিটরিসে জিহ্বা দিয়ে নাড়াচাড়া দিতেই আমি পাগল হয়ে গেলাম। দাদার চুলের মুঠি ধরে জোড়ে টান দিয়ে আমার মুখের কাছে এনো তার ঠোট কামড়ে ধরলাম। কিছুক্ষণ এভাবে চোষার পর দাদা উঠে তার গায়ের শার্ট প্যান্ট খুলতে লাগল। আমি লজ্জায় চোখ বুজে রইলাম। পোষাক খূলে পাশে রেখে দিয়ে আবার আমার শরীরের উপর শুয়ে পড়ল। আমার দুই হাতে হাত দিয়ে ধরে আমার মুখে মুখ লাগিয়ে ঠোট চুষতে লাগল। একসময় টের পেলাম আমার দুপায়ের কাছে কি যেন শক্ত একটা পদার্থ ফুলে ফুলে উঠছে। আমার ঠোট ছেড়ে আমার সারা মুখে জিহ্বা দিয়ে চেটে চেটে লোনা স্বাদ নিতে নিতে মুখটাকে লালায় লালায় ভরে দিলো। আমার আর ঘৃনা করছে না। আমি সুযোগ পেলে তার ঠোট কামড়ে দিতে থাকি। এক সময় লিপন দাদা আমার শরীরের উপর থেকে এক পাশে নেমে ডান হাত দিয়ে আমার একটা স্তন চেপে ধরে আর এক হাত আমার যোনির কাছে নিয়ে যোনির চারিদিকে ডলতে থাকে। আমার যোনির চারিপাশে শরীরের অন্য জায়গার তুলনায় একটু বেশী … …লোম উঠেছে। শুনেছি একে স্থানীয় ভাষায় বাল বলে। আমার বালের উপর দিয়ে দাদার হাতের পরশ দারুন লাগছে। হঠাত করে আমার যোনি এলাকা হাতের মুঠোয় ধরে চাপ দিল। আমি শিহরিত হয়ে লফিয়ে উঠতে চাইলাম। কিন্তু তার ডান হাতের চাপে উঠতে পারলাম না। তার ডান হাতের চাপে আমার দুটি স্তন দলিত মথিত হচ্ছে। মাঝে মাঝে দুধের বোটায় আস্তে আস্তে চিমটি কাটছে। মাথাটা নিচু করে আমার নাভিতে জিহ্বা ছোয়াতেই শরীর মধ্যে শিহরনটা আরো বেশি করে টেরপেলাম। লিপন দাদার দুই হাতের অনবরত চাপাচাপি, আদর, সোহাগ, জিহ্বার লেহন সবকিছু মিলে আমাকে পাগল করে তুলেছে। আমার মুখ থেকে আ: আ:, উ: ইস: ইত্যাদি শব্দ বেরুচ্ছে আমার মনের অজান্তেই। শুনে লিপন দাদা কানে কানে বলল, শব্দ করবে না। বলেই আমার কানের লতিতে ছোট্ট করে একটা কামড় দিলে। এবার দাদা বা হাতের আংগুল দিয়ে আমার যোনির চেরা জায়গাটা ফাক করে আংগুল ভিতরে ঢুকাতে লাগল। টের পাচ্ছি আমার যোনি ভিজে উঠেছে। সম্ভবত কামরস বেড়িয়েছে। আমি অসহ্য সুখে আত্মহারা হয়ে গেলাম। দাদাকে বললাম, আমি আর সহ্য করতে পারছি না। আমাকে মেরে ফেলেন। আমি পাগলের মত প্রলাপ বকতে বকতে দাদার পিঠে হাত দিয়ে কাছে টানলাম। দাদার মুখটা আমার মুখের কাছে নিয়ে আবার তার ঠোটে কামড় বসিয়ে দিলাম। … …কিছুক্ষণ ঠোট চোষার পর দাদা উঠে আমার পায়ের কাছে বসলেন। আমার দুপা দু পাশে ফাক করে তার মাঝে বসে যোনিতে হাত দিয়ে দলিত মথিত করা শুরু করে দিল। হাঠাৰ একটা আংগুল আমার যোনি গহ্বরে ঢুকিয়ে দিলে আমি ব্যথায় ককিয়ে উঠলাম। কিন্তু দাদা থেমে গেলনা। আংগুলটা ভিতরে বাইরে করা শুরু করলে আস্তে আস্তে আমার ব্যথা কমে এল। আমি সুখ অনুভব করা শুরু করেদিলাম। মনে হচ্ছে এরকম সারাক্ষণ করলে ভালই হত। এতক্ষণ করলনা কেন? আরামে চোখ বুজে এলো। কিছুক্ষণ এভাবে করার পর ধীরে ধীরে দাদা আমার শরীরে উপরদিকে উঠে এলেন। আমার খারাপ লাগছে। কেন আংগুলের কাজ থামিয়ে উপরে উঠে এল। কি দরকার এখন উপরে। উনি আমার শরীরের উপর ভর দিয়ে আমার দুপা আরো ফাঁক করে দিলেন। এরপর বা হাত দিয়ে আমার যোনি ফাক করলেন। তার পর টের পেলাম আমার যোনির মুখে গরম কি একটা স্পর্শ করল। প্রথমে যোনির উপর থেকে নিচে সেটি ঘষাঘষি করে আমার যোনি ছিদ্র পথে স্থাপন করলেন। আমার বুঝতে বাকী রইলনা, এটি তার যাদু দন্ড। আমি ভয়ে আমার ডান হাতটা আমার তল পেটের কাছে নিয়ে তার যাদু দন্ডটি মুঠ করে ধরে ফেললাম। ধরেই আতকে উঠলাম। উ: বাবা, কি বিশাল দন্ড? অসম্ভব মোটা, গরম। তির তির করছে কিছু ধংস করার অভিপ্রায় নিয়ে। আমি চেপে ধরে থাকি যাতে সেটি আমার কোন ক্ষতি করতে … …না পারে। কিন্ত তখন লিপন দাদার শরীরে অসুর শক্তি ভর করেছে। তাকে থামাবার মত শক্তি আমার কোথায়? দাদার মুখের দিকে করুণ মিনতি নিয়ে তাকালাম। দেখলাম সে মুখে এক মোহনীয় অনুভূতি লেপ্টে আছে। যা তাকে এক দেবতার রূপ প্রদান করেছে। মনে হলো আমাকে যেন স্বর্গের সিড়ি দিয়ে ধীরে ধীরে তুলে নিয়ে যাবার জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত। এখন আমার অনুমতি সাপেক্ষে পথ চলার শুরুর অপেক্ষা। আমি সেই স্বর্গ সুখের আশায় আর বাঁধা দিতে পারলাম না। দাদা আমার হাত থেকে তার দন্ডটা ছাড়িয়ে নিয়ে আমার যোনির উপর থেকে নীচ পর্যন্ত ঘষতে লাগলেন। আমার কামরসে জবজব করা যোনি তখন এক অনাগত সুখের আশায় খাবি খাচ্ছে। হঠাত করে আমার যোনি দারে দাদা তার দন্ডটা সেট করে আস্তে করে একটা চাপ দিলেন। আমি ব্যথায় ককিয়ে উঠলাম। তার দন্ডের মাথায় অবস্থিত ডিমের মত অংশটা আমার যোনির ভিতরে গিয়ে আটকে গেল। দাদা আস্তে আস্তে ধাক্কা দিতে লাগলেন। কিন্ত না। আর ভিতরে যাচ্ছেনা। আমি ব্যথায় ককিয়ে উঠে দাদাকে আর ঢোকানোর জন্য বারণ করতে লাগলাম। কিন্তু তাকি শোনার সময় আছে? উনি বার বার চেষ্টা করে যেতে লাগলেন। কিন্তু ফল একই। কি ভেবে দাদা একটুখানি সময় নিরব থেকে হঠাত কোমরটা একটু সরিয়ে নিয়ে আবার প্রচন্ড ঝড়ের বেগে আমার উপর … …ঝাপিয়ে পড়লেন। আমার ভিতর কি যেন এক বাধ ভেঙে চৌচির হয়ে গেল। প্রবল বেগের ঝড়ের ধাক্কা আমার ইশ্বর প্রদত্ত বাধা আগলে রাখতে পারলনা। ঝড়টা আমার সকল বাধা অতিক্রম করে বীরের বেশে আমার মধ্যে প্রবেশ করল। আমি ব্যথায় চেতনাহীন হয়ে গেলাম। যখন জ্ঞান ফিরে পেলাম দেখলাম দাদা সেখানে সেভাই অপেক্ষা করছে আমার জন্য। আমি জ্ঞান ফিরতেই মুচকি হেসে দিলাম। দাদা কি বুঝে জানিনা আমার যোনির একদম ভিতরে ঢুকে থাকা তার দন্ডটা প্রায় বের করে এনে আবার ঢুকিয়ে দিলেন। আমি আবারো ব্যথায় ককিয়ে উঠলাম। কিন্তু দাদা এবার আর থামলো না। আবার তার দন্ডটা প্রায় বের করে আমার ভিতরে ঢুকিয়ে দিলেন। তার প্রায় ৯ ইঞ্চি লম্বা এবং ৪ ইঞ্চির মত মোটা দন্ডটা একটা লোহার রডের মত আমার যোনির ভিতর একবার ঢুকছে একবার বের হচ্ছে। প্রতিবার ঢোকার সময় মনে হচ্ছে আমার ভিতরে একটা গরম রড যাচ্ছে। ধীরে ধীরে এই ঢোকা-বের হোয়া ভাল লাগতে শুরু করেদিল। যতই দাদার দন্ডটা আমাকে আঘাত করছে ততই যেন আরাম লাগছে। রুমের জানালা দিয়ে সামান্য আলো এসে ঘরটাকে যেটুকু আলোকিত করেছে তাতে আমি দেখতে পাচ্ছি, লিপন দাদা এক দারুন রূপ নিয়ে আমাকে তার যাদু দন্ড দিয়ে সুখ দিতে আপ্রাণ চেষ্টা করছে। আমি ক্রমাগতভাবেই সুখের সাগরে অবগাহন … …করছি। এবার দাদা একটু সামনে ঝুকে আমার বুকে হাত দিয়ে আমার দুটি কমলার মত মচমচে স্তন দুহাতে ধরে চাপ দিতে দিতে কোমর দুলিয়ে দুলিয়ে আমার ভিতরে তার যাদুর দন্ড চালনা করতে লাগল। আমি বুঝতে পারছি, এতকাল অতি যত্নে রক্ষিত আমার বুকের দুটি খাড়া খাড়া সম্পদ তার সুন্দর আকৃতি হারাবে দাদার আদরের বদৌলতে। তবে এটাই যেন আমি চাইছি। এটাই এখন আমার চাই। দাদা যা করছে, এছাড় যেন আমি আর কিছু ভাবতেই পারছি না। আমার শরীরটা তার আদারে আর যাদু দন্ডের আঘাতে আঘাতে সুখের আবেশে চৌচির হয়ে যাচ্ছে। শরীরের ভিতর এক অজানা অচেনা সুখে মুচড়ে মুচড়ে উঠছে। আমি যেন নিজেকে আর নিজের মধ্যে ধরে রাখতে পারছি না। দাদার পিঠে দুহাত দিয়ে জড়িয়ে ধরে আমার বুকের সাথে তাকে মিশিয়ে নিতে চাইলাম। দাদা ক্রমেই তার কোমরের আপ ডাউন করার গতি বাড়িয়ে চলেছে। যেন অফুরন্ত শক্তি তার গায়ে। আমাকে ক্লান্তহীনভাবে আঘাতের পর আঘাত করেই চলেছে যা আমাকে সুখের সাগরে ভাসিয়ে নিয়ে চলেছে। কোথায় নিয়ে শেষ করেবে আমি ভেবে পাচ্ছিনা। আমার মুখে মুখ ঠেকিয়ে ঠোট চুষতে চুষতে দাদা তার কোমরের গিত আরো বাড়িয়ে দিল। আমি আর সহ্য করতে পারছি না। আমার মুখ থেকে উ: উ:, আ: ইসসসসসস……., উ:উউউউউউ…………….., আ:অঅঅঅঅঅঅঅঅঅঅঅঅ শব্দ বেড়িয়ে যাচ্ছে। আমি … …কোনরকমের হুস রাখতে পারছিনা নিজেকে সামলাবার। কোন ব্যথাতো্ নেই, বরং সুখের ঝর্ণাধারা আমার শরীরের মধ্যে কুলু কুলু তানে বয়ে চলেছে। দাদার যাদু দন্ডের প্রতিটি আঘাত আমার শরীরের মধ্যে রক্ষিত সকল মধুর রসধারা নিংড়ে নিংড়ে বের করে আনতে চাইছে। কোনভাবেই আর ধরে রাখতে পারছি না। আমার শরীরটা ভেঙে চুড়ে দলিত মথিত হয়ে শেষ হয়ে যাচ্ছে। দার পিঠে আমার অতি যত্নে রক্ষিত হাতের নখগুলো বসে যাচ্ছে। দাদারো তাতে কোন প্রতিক্রিয়া নেই। কারন সে এখন তার সমস্ত শক্তি দিয়ে আমার ভিতরে তার কামনা শক্তির রসধারা নির্গমনের চেষ্টায় ব্যস্ত। অন্য কোন দিকে নেজর দেবার কোন চেতনা আমাদের দুজনের মাঝে নেই। আমি আর পারছিনা দাদা, আমাকে মের ফেল, আমার শরীরটাকে তুমি খেয়ে ফেল, আমাকে শেষ করে দিয়ে তুমি আমাকে সুখের সাগরে ভাসিয়ে দিলেই আমি বাচব বলতে বলতে কি যে হল, আমার শরীরের ভিতরে মোচর দিয়ে উঠলো। খিচুনির মত শরীরটা খিচে খিচে উঠে আমার যোনি দিয়ে দাদার দন্ডটাকে কামড়ে কামড়ে ধরলাম। আমার শরীর থেকে কি যেন বেরিয়ে গেল আমাকে সুখের সাগরে ভাসিয়ে। আমি দাদার পিঠ খামচে ধরে অবশ হয়ে গেলাম। শরীরটা এক অচেনা ভালালাগায় ভরিয়ে দিয়ে আমাকে নেশার ঘোরে ঠেলে দিল। কতক্ষন জানিনা, আমার কোন অনুভুতি কাজ … …করলনা। যখন আবার অনুভুতি ফিরে পেলাম দেখি দাদা চুপ করে আছে। আমাকে হাসতে দেখে আবার তার কোমর চালানোর কাশ শুরু করে দিল। এবার প্রচন্ড গতিতে তার কোমর চালাবার সাথে সাথে আমার বুকের ধন দুটো কান্ডজ্ঞানহীনভাবে পিষতে লাগল। আমি কেন যানি বাধা দিতে পারলাম না। দাদার কোমর চালনার গতি এত ঘন ঘন শুরু হল যে প্রতিটি আঘাতের সাথে সাথে আমার সারা শরীর বিছানার সাথে আগুপিছু করতে লাগল এবং আমার স্তন দাদার হাত থেকে মুক্ত হয়ে ছন্দে ছন্দে দুলতে লাগল। একসময় অনুভব করলাম দাদা আমার বুকের কাছে মুখ নিয়ে একটা স্তন মুখে নিয়ে কামড়ে ধরে ঘন ঘন তার কোমর চালাচ্ছে তার সমস্ত শক্তি দিয়ে। ৯ ইঞ্চি দন্ডটা আমার জরায়ু মুখে গিয়ে ধাক্কা মারছে। ধাক্কার তালে তালে থপ থপ একটা শব্দে ঘরটা ভরে গেছে। যেন সর্বশেষ আঘাত করতে এখন প্রস্তত লিপন দাদা। ঠিক সেই সময় কেন যেন বজ্রাঘাতের মত দরজায় কড়া নেড়ে উঠল। আশি তড়িতাহতের মত দাদার বুকে হাত রেখে এক ধাক্কায় সরিয়ে দিয়ে লাফ দিয়ে বসে পড়লাম। দারর দন্ডটা আমার যোনির ভিতর থেকে বের হয়ে গেল। আমি সংগে সংগে তাকে আলনার ভিতরে ঢুকিয়ে দিয়ে বেরিয়ে এলাম।

This entry was posted in Uncategorized and tagged . Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s